কুতুবপুরে ২ নং বিট পুলিশের নারী ধর্ষণ ও নির্যাতন বিরোধী সমাবেশ।

ঢাকা

স্টাফ রিপোর্টারঃ নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার কুতুবপুরে ২ নং বিট পুলিশের চৌকস পুলিশ অফিসার   এস আই ইমানুর রহমান  ও এস আই আরিফ তালুকদার  এর  উদ্যোগে নারী ধর্ষণ ও নির্যাতনের বিরুদ্ধে সমাবেশ।
১৭ অক্টোবর শনিবার সকাল ১০  ঘটিকায় শাহী মহল্লায় এ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। 
এসময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মনিরুল আলম সেন্টু।
এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৫ নং ওয়ার্ড মেম্বার, আলাউদ্দিন হাওলাদার, ৬ নং ওয়ার্ড মেম্বার রোকন উদ্দিন রোকন, ৪ নং ওয়ার্ড মেম্বার জামান মিয়া, ৪,৫,৬ নং ওয়ার্ড মহিলা  মেম্বার অনামিকা হক, কুতুবপুর ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক  সভাপতি মাহবুবুর রহমান হক।
এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ৫নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, কুতুবপুর মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বিউটি,   ৫ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আঃ মালেক, ডাঃ শাহ আলম সোহাগ, জামাল উদ্দিন বাচ্চু, আব্দুর রহমান, দ্বীন ইসলাম সহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ গণ।
এ সময় কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সেন্টু বলেন, আকন গলি সহ যেখানে ইভটিজিং কিংবা মা বোন লাঞ্চিত হয় অথবা মাদকের জমজমাট ব্যবসা সে সকল জায়গায় লিস্ট করে দ্রুত ব্যবস্থা নিয়ে উৎখাত করা হবে।
জামান মেম্বার বলেন, মাদকের মতো ধর্ষণ একটি সামাজিক ব্যাধি। এই ব্যাধি নির্মূলে বিট পুলিশ সহ সকল সমাজ উন্নয়ন কমিটি কে এগিয়ে আসতে হবে।
 মেম্বার আলাউদ্দিন হাওলাদার বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দর জন্য যে কঠিন শাস্তির ব্যবস্থা নিয়েছেন তা যেন দ্রুত বাস্তবায়ন হয় এবং আমাদের এলাকা থেকে কিশোর গ্যাং কিংবা মাদক ব্যবসায়ীদের নির্মূল করলেই আমাদের মা বোনেরা নিশ্চিন্তে ঘরে ফিরতে পারবে।
মেম্বার হাজী রোকন উদ্দিন বলেন, ধর্ষণ কিংবা ইভটিজিং মুক্ত এলাকা গড়া তখনই সম্ভব হবে যখন এই এলাকা থেকে কিশোর গ্যাং কিংবা মাদক নির্মূল করা যাবে। তাই বিট পুলিশিং এর এমন মহতী উদ্যোগকে আমি স্বাগত জানাই।

মহিলা মেম্বার অনামিকা হক প্রিয়াংকা বলেন, আমাদের মা, বোন এবং মেয়েদের নিরাপত্তার জন্য কুতুবপুর ইউনিয়নের এমন একটা আইন করা দরকার যাতে কিশোর গ্যাং কিংবা মাদক সহজেই নির্মূল করা সম্ভব হয়। আজ ২ নং বিট পুলিশের এমন মহতী উদ্যোগ যেন দ্রুত বাস্তবায়ন হয় সেই প্রত্যাশা রাখি। বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড বলেছেন। আমরা আশাবাদী নারীরা যেন নিরাপদে ঘরে ফিরতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *