চট্টগ্রাম পশ্চিম মাদার বাড়িতে সুদের টাকা তথ্য সংগ্রহ করতে গিয়ে হুমকি মধ্যে সংবাদকর্মী 

ক্রাইম রিপোর্ট
চট্টগ্রাম ব্যুরো কামরুল হাসান 
চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন এরিয়ার সদরঘাট থানার পশ্চিম মাদার বাড়ি কে মেরিন ওয়ার্ক সপ এর মালিক হাজী মোহাম্মদ কামাল হোসেন কে। এলাকার কয়েকজন প্রভাবশালী সুদখোর মিলে উনার বাড়ি গাড়ি সহ সবকিছু জিম্মি করে নিয়ে রাখেন। একপর্যায়ে কে মেরিন ওয়ার্ক সপ মালিকের ছোট ভাই মোহাম্মদ জালাল উদ্দীন রানা। তাঁর বড় ভাই হাজী কামাল হোসেন বিল্ডিং পঞ্চম তলায় মধ্যে গত ডিসেম্বর প্রথম সপ্তাহের দিকে ভাইয়ের বিল্ডিং উঠেন এবং  সুন্দর ভাবে বসবাস করেও যাচ্ছেন। কিন্তু কিছু দিন যাওয়ার পরেই প্রভাবশালী অবৈধ সুদখোর জসিম কে। কে মেরিন মালিক এর ছোট ভাই ঐ বিল্ডিং থেকে নেমে যাওয়ার জন্য হুমকি দিয়ে যাচ্ছেন। না হয় প্রতি মাসে  বাসা ভাড়া দিয়ে থাকতে হবে। আর এই বাসা ভাড়া দিতে হবে নাকি বাধ্যতা মূলক  তা-ও আবার প্রভাবশালী অবৈধ সুদখোর জসিম কে। একপর্যায়ে প্রভাবশালী অবৈধ সুদখোর জসিম এবং কে মেরিন এর মালিক ও আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সাংবাদিক সংস্থা সদস্য ও  সংবাদকর্মী এবং আরও এলাকার দুই চারজন সামাজিক ব্যক্তি বর্গ সহ আলোচনার মধ্যে বসেন। তখন প্রভাবশালী অবৈধ সুদখোর জসিম নিজের প্রভাব দেখিয়ে চলে গেলেন। এবং যাওয়ার সময় বলে গেলেন যে সে নাকি  নিজের বিচার নিজে করবে সংবাদকর্মী সহ সবাইকে হুমকি দিয়ে চলে যায়। তখন সংবাদকর্মী আর গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সংগ্রহ করার জন্য। কে মেরিন মালিক এর ছোট ভাই সাথে কথা বলার জন্য ঐ বিল্ডিং পঞ্চম তলায় মধ্যে গেলে। তখন প্রভাবশালী অবৈধ সুদখোর জসিম উদ্দেশ্য মূলক মনোভাবে সংঙ্গীয় দুইজন সন্ত্রাসী সহ সংবাদকর্মী কে গাল মন্দ ও নাজেহাল করেন, যা অতন্ত্য দুঃখজনক ইহা ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। যাহা উক্ত চিত্র ভিডিও ফুটেজ রেকর্ড করা আছেন। এবং উল্টো সংবাদকর্মী কে ভিডিও দারুণ   করে বলেন যে যদি তুই কোন নিউজ করিস তাহলে তো অবস্থা কি হবে তখনই তুই  বুজতে পারবি। বলে হুমকি দিচ্ছেন। প্রভাবশালী অবৈধ সুদখোর জসিম এর ভিডিও ফুটেজ দিয়ে সংবাদকর্মী সঙ্গে খেলা খেলবে বলে এক প্রকার চ্যালেন্জ করেন। এই ঘটনার  সব ডকুমেন্ট সংবাদকর্মীর কাছে ভিডিও ফুটেজ সহ রেকর্ড ভুক্ত আছে।
প্রশাসনিক সহযোগিতা করার জন্য জোরালোভাবে হস্তক্ষেপ কামনা করি। যাহা-পরবর্তী পর্বে আরও গোপন তথ্য প্রকাশ করা সম্ভব হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *