বাঘা উপজেলা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা।

রাজশাহী
এম,জহুরুল ইসলাম,বাঘা পৌর প্রতিনিধি,বাঘা,রাজশাহী।
 আজ রবিবার অমর ২১ শে ফেব্রুয়ারী ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। দিনটি বাঙালি জাতির জীবনে বেদনার ও গর্বের দিন। জাতিসংঘের উদ্যোগে বাংলাদেশ সহ সারা বিশ্বে ভাষা শহীদদের স্মরণে দিনটি যথাযথ মর্যাদায় পালিত হচ্ছে।
গৌরবের আলোয় উদ্ভাসিত মাতৃভাষা আন্দোলনের ৬৯ বছর পূর্ণ হলো । ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি নিজের জীবন উৎস্বর্গ করে ভাষা শহীদরা জাতিকে দিয়ে গেছেন এক মহৎ ও দুর্লভ অধিকার।
বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে বাংলার (তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান) ছাত্র, যুবসমাজসহ সর্বস্তরের মানুষ শাসক গোষ্ঠীর চোখ-রাঙানি ও প্রশাসনের ১৪৪ ধারা উপেক্ষা করে দৃপ্ত পায়ে রাজপথে নেমে আসে। সেদিন ছাত্র-জনতার মিছিলে পুলিশ গুলি চালালে শহীন হন রফিক, সালাম, জব্বার, শফিক, বরকত ।
তাদের এই আত্মদানের মধ্য দিয়ে স্বমহিমায় প্রতিষ্ঠিত হয় বাংলা ভাষা। মায়ের ভাষার মর্যাদা অর্জনের পাশাপাশি বাঙালি রাজনৈতিক ও আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের ক্ষেত্রেও পায় নতুন অনুপ্রেরণা। আর এই বিজয়ের পথ বেয়ে সূচিত হয় বাঙালির স্বাধিকার আন্দোলন যার পরিণতি একাত্তরের স্বাধীনতা যুদ্ধের মধ্য দিয়ে স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ।
তাই ২১শে ফেব্রুয়ারি শোকাবহ হলেও এর গৌরবোজ্জ্বল অধ্যায় পৃথিবীর বুকে অনন্য। বিশ্বে একমাত্র বাঙালি জাতিই ভাষার জন্য জীবন দিয়েছে।
মহান একুশের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ২১ ফেব্রুয়ারিকে জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি বিষয়ক সংস্থা (ইউনেস্কো) ১৯৯৯ সালে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্বীকৃতি দেয়। এর পর থেকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে পালিত হচ্ছে দিনটি।
আজ একুশের প্রথম প্রহরে বাঘা উপজেলা প্রশাসন,পুলিশ প্রশাসন,আওয়ামীলীগ ও তার অঙ্গসংগঠন,বিএনপি ও তার অঙ্গসংগঠন,জাতিয় পার্টি,জাসদ,কমিনিষ্ট পার্টি ও বিভিন্ন রাজনৈতি,সামাজিক ও সাংস্কৃতিক নেতৃবৃন্দরা দিনটির প্রথম প্রহর রাত ১২টা ১ মিনিটে বাঘা উপজেলা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানান। সকাল ৭টায় স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা তাদের স্বস্ব প্রতিষ্ঠান থেকে প্রভাত ফেরিতে অংশগ্রহণ করেন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *