‘আল্লাহ’ আমাদের হেফাজত ও রক্ষা করছেন ‘আলহামদুলিল্লাহ’-লাখো কোটি শুকরিয়া!

ধর্ম

হেলাল শেখঃ মহান ‘আল্লাহ’ আমাদের সকল বিপদ থেকে রক্ষা করছেন, “আলহামদুলিল্লাহ”-হে সৃষ্টিকর্তা মহান ‘আল্লাহ’ আপনি আমাদের বাংলাদেশ ও দেশের মানুষকে প্রতিবার ঘুর্ণিঝড় থেকে রক্ষা  করেছেন, আলহামদুলিল্লাহ- আপনার কাছে লাখ লাখ কোটি কোটি শুকরিয়া। হে আল্লাহ আপনার রহমতে কোভিড-১৯  মহামারি থেকেও বাংলাদেশের মানুষকে হেফাজত করছেন, আলহামদুলিল্লাহ। কোভিড-১৯ মহামারির কারণে বাংলাদেশসহ বিশ্বের ২১৩টি দেশে কয়েক লাখ মানুষের  মৃত্যু হয়েছে। দীর্ঘ এক বছরের বেশি সময় দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা বিপাকে  পড়েছেন। কবে পুরোপুরিভাবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো আবার চালু করা হবে তা কেউ জানেন না। এ অবস্থায়  কোমলমতি শিশু বাচ্চাসহ অনেকেই বেকার বাসা বাড়িতে সময় কাটাচ্ছে। অনেকেই স্মাটফোনে ফেসবুক ব্যবহার  করার সময় কেউ কারো দিকে দৃষ্টি না দিয়ে ফোন টিপাটিপি নিয়ে ব্যস্ত থাকেন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভালো মনমানুষিকতার মানুষ যারা তাদের সম্মান টিকিয়ে রাখার জন্য দুষ্টুলোকগুলোর থেকে দূরে থাকছেন। অসভ্যতামী করা কোনো মানুষের কাজ নয়। হে আল্লাহ আপনি আমাদেরকে ক্ষমা করুন, আমরা না বুঝে অনেক ভুল ও অপরাধ করি, তারপরও আমাদেরকে আপনি হেফাজত করেন, আলহামদুলিল্লাহ। আজ থেকে ২০ বছর আগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ছিলো না। অনেক আগে মোবাইল বা ফেসবুক কি মানুষ বুঝতে পারেনি,তারপর আসলো মোবাইল-তা কিভাবে ব্যবহার করে  তাও জানতেন না বেশিরভাগ মানুষ, সময়ের সাথে সাথে মানুষ অনেক পরিবর্তন হয়েছে। কয়েক বছর আগে কিছু  অর্থশালী লোকজন মোবাইল ব্যবহার করেছেন। বর্তমানে প্রায় ৭০% মানুষ মোবাইল ব্যবহার করতে দেখা যায়। কয়েক  বছর আগে ফেসবুক কি? তা কোনো মানুষ জানতেন না, ডিজিটাল প্রযুক্তি কি বুঝতেন না কেউ। বর্তমানে পৃথিবীর বেশিরভাগ দেশে ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহার করছেন মানুষ। মোবাইল ও ফেসবুকে মিথ্যাচার ও প্রতারণা বৃদ্ধি পেয়েছে। মোবাইল ফোন ও ফেসবুক যোগাযোগ মাধ্যমকে ব্যবহার করে ভালো কাজের পাশাপাশি অনেক অপরাধমুলক কর্মকান্ডের সাথে জড়িয়ে পড়ছে অনেক মানুষ। “এক মহান আল্লাহ” আদম ও হাওয়াকে সৃষ্টি করার পর সকল মানুষের আলাদা আলাদা ভাবে বাবা, মায়ের মাধ্যমে দুনিয়াতে আগমন করছে, শুরু হয়েছে মানুষের জীবনে চাওয়া পাওয়া। দুনিয়াতে যে, মা ১০মাস ১০দিন গর্বেদ্বারণ করেন, তার আগে বা পরে একই নিয়মে মা তাঁর সন্তানকে জন্ম দেন, এরপর বড় করেন মায়ের প্রিয় সন্তানকে। সেই সন্তান যদি মা বাবাকে না দেখে,বা সুদৃষ্টি না দিয়ে ফেসবুককে আপন মনে করে জন্মদাতা পিতা মাতাকে কষ্ট দেয়, এটা কি মানবিকতা? আমরা নিজেকে মানুষ বলে দাবি করি এটা সত্য। আমাদের মৃত্যু হবে এটা জেনে অহংকার করি কেন?। মৃত্যুতে বিশ্বাসী হয়ে আমাদের কিসের এতো অহংকার? মানুষ বলে দাবি করলে তাদেরকে অবশ্যই মানুষের আত্মা তৈরি করে নিতে হয়, দেহগত আত্মা আর মানুষিক আত্মা একরকম নয়। যৌবন মানব জীবনের এক শ্রেষ্ট সম্পদ, তাকে কেউ অস্বীকার করতে পারেন না, মানুষের যৌবন চিরদিন স্থায়ী ভাবে থাকে না। বাস্তবতা যতটাই কঠিন হোক না কেন তা সবাইকে মানতে হয়। “জীবনে প্রতারণা ও মিথ্যাচার অভিনয় করা সহজ কিন্তু বাস্তবতা অনেক কঠিন” মিথ্যাচার করা যে, বড় অপরাধ, তবুও কেন মানুষ মিথ্যাচার করে? সিস্টেম পাল্টানো দরকার, সিস্টেম পরিবর্তন হলে মানুষগুলোও  পরিবর্তন হবে। এতো ভুল, এতো অপরাধ করেছি আমরা, তারপরও আল্লাহ আমাদের বাংলাদেশের মানুষকে হেফাজত করছেন, আল্লাহর রহমতে আমরা বাংলাদেশের মানুষ অনেক ভালো আছি। আজ বৃহস্পতিবার (২৭ মে ২০২১ইং) ২৪ ঘন্টায় করোনায় মৃত্যু সংখ্যা ২২জন, যা এর আগে সংখ্যা বেড়েছিলো ১১২জন। আমাদের দেশের বেশিরভাগ মানুষ স্বাস্থ্যবিধি মানে না, সবাই স্বাস্থ্য সচেতন হওয়া জরুরি। আল্লাহ আমাদের বাংলাদেশের মানুষের প্রতি সহায় হয়েছেন, তিনি আমাদেরকে হেফাজত  করছেন। করোনা ভাইরাস ও ঘুর্ণিঝড় থেকে আল্লাহ সবসময় আমাদের রক্ষা করছেন, হেফাজত করছেন,  “আলহামদুলিল্লাহ” হে আল্লাহ আপনি আমাদেরকে ক্ষমা করুন, আমিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *