ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণকাজ উদ্বোধন করেছেন সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

জাতীয়

হেলাল শেখঃ সবকিছু ঠিক থাকলে ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে প্রায় ১৭ হাজার কোটি টাকা ব্যয় করে ২০২৬ সালের জুনের মধ্যে নির্মাণ কাজ শেষ হবে বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।
ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণ প্রকল্পের স্ট্যাটিক লোড টেস্টের পাইলট পাইল বোলিং কাজের উদ্বোধনের সময় সেতুমন্ত্রী এসব কথা বলেন।
শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ইং) বেলা ১১টার দিকে তুরাগ থানার ধউর এলাকায় সবুজ নিশান উড়িয়ে পাইল বোলিং কাজের সূচনা করেন সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে এই
প্রকল্পের জন্য লোন চুক্তি সম্পন্ন হবে। আমাদের ফান্ডিংয়ের কোনো সমস্যা নেই বলেও তিনি দাবি করেন। ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, আগামী বছরই চট্রগ্রামে নির্মীয়মাণ কর্ণফুলী টানেলের ৭০ শতাংশ কাজ শেষ হবে। এছাড়া
মেট্রোরেল প্রকল্প আগামী বছর সমাপ্ত হওয়ার কথা রয়েছে।
ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘শুরুতেই হোঁচট খাওয়ার কোনো কারণ নেই। বর্তমানে যে রাস্তা আছে, এখানে জনগণ কোনো ভোগান্তি যেন না হয়, রাস্তা যেভাবে আছে থাকুক। অনেক
মানুষ বিকল্প পথ হিসেবে এই পথ ব্যবহার করেন। এখানে মানুষের যেন ভোগান্তি না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।
আমি ভোগান্তির বিষয়ে এড়িয়ে চলতে বলবো। রাস্তা যেন ব্যবহারের উপযোগী থাকে। ক্যায়োটিক পরিস্থিতি যেন সৃষ্টি না হয় সেদিকে খেয়াল রাখবেন।
উক্ত প্রকল্পের মোট ব্যয় ধরা হয় ১৬ হাজার ৯০১ দশমিক ৩২ কোটি টাকা, যার মধ্যে বাংলাদেশ সরকার বহন করবে ৫ হাজার ৯৫১ দশমিক ৪২ কোটি টাকা এবং বিদেশী চীন সরকার বহন করবে ১০ হাজার ৯৪৯ দশমিক ৯১ কোটি টাকা। এক্সিম ব্যাংক অব চায়না আর্থিক সহায়তা দেবে।লোন চুক্তি সম্পন্ন হবে আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে। সংশ্লিষ্টরা জানান, শনিবার থেকেই এই প্রকল্পের নির্মাণকাজ শুরু বলা যায়। প্রকল্পের সঙ্গে জড়িতদের উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, আমি পরিস্কার ভাবে বলে দিতে চাই, শতভাগ স্বচ্ছতার সঙ্গে সব প্রকল্পের নির্মাণকাজ শেষ করা হবে। এখানে কোনো নয়ছয় করার সুযোগ নেই। চার লেনবিশিষ্ট এই এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের দৈর্ঘ্য হবে ২৪ কিলোমিটার।
এয়ারপোর্ট-আব্দুলাহপুর-ধউর-পুরাতন বড় আশুলিয়া-জিরাবো-বাইপাইল হয়ে ঢাকা ইপিজেড পর্যন্ত হবে এর বিস্তৃতি। এর সঙ্গে র‌্যাম্প হবে ১০ দশমিক ৮৪ কিলোমিটার, নবীনগরে ১ দশমিক ৯১৫ কিলোমিটার, ফ্লাইওভার, ৪ লেনের ২ দশমিক ৭২ কিলোমিটার সেতু ও ১৮ কিলোমিটার ড্রেন। এই প্রকল্পের কাজ করছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না ন্যাশনাল মেশিনারি ইমপোর্ট অ্যান্ড এক্সপোর্ট করপোরেশন।
২০১৭ সালে একনেক সভায় ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্প চুড়ান্ত অনুমোদন লাভের পর পাঁচ বছর মেয়াদে ২০২২ সালের জুন মাসের মধ্যে প্রকল্পের কাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও নতুন করে আবার কাজ সমাপ্তির মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে যা ২০২৬ সালে জুনের মধ্যে শেষ হওয়ার কথা। উক্ত নির্মাণকাজের উদ্বোধনের সময় উপস্থিত ছিলেন, আশুলিয়া থানা আওয়ামী লীগের আহŸায়ক ফারুক হাসান তুহিন, আশুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন মাদবর ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাসহ সংশ্লিষ্ট
কর্মকর্তাগণ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *