কিশোরগঞ্জে চাষ হচ্ছে নতুন সম্ভাবনাময় তৈল জাতীয় ফসল পেরিলা

অর্থনীতি

মোঃ মিজানুর রহমান কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ মূল্যবান উচ্চফলনশীল ভোজ্য তৈল ফসল পেরিলা দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার গগিু পেরিয়ে দেশের অন্য জেলার মত উত্তরবঙ্গে এই প্রথম এর চাষাবাদ হচ্ছে নীলফামারী কিশোরগঞ্জ উপজেলার মাগুরা মিয়া পাড়া গ্রামে।
সরেজমিনে গতকাল মঙ্গলবার জানা গেছে, কৃষি অফিসের বাস্তবায়নে,উদদ্ধকরণ প্রদর্শনীর মাধ্যমে ব্যাপক সম্ভাবনাময় নতুন ভোজ্য তৈল ফসল পেরিলার পরীক্ষামূলক চাষে ঙ্গর্ষণীয় সফলতার স্বপ্ন বুনছেন ওই গ্রামের কৃষক শাহজান আলী। কোরিয়ান উচ্চমান এ নতুন তৈল ফসল ঝুকিমুক্ত, রোগবালাই ও পোকার আক্রমণ কম, বীজ তলা থেকে ১০০ দিনে উত্তোলন যোগ্য,সরিষার মত দানা হওয়ায় গ্রামীন ঘানিসহ অটো অয়েল মিলে ভাঙ্গানো যায়, অন্য ফসল থেকে এ ফসল অধিক লাভজনক হওয়ায় অত্র এলাকার অন্য কৃষক এ ফসল চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন। নতুন এ সম্ভাবনাময় ফসল সাউ পেরিলা-১ (গোল্ডেন পেরিলা বিড়ি) বাণিজ্যকভাবে চাষাবাদ এখন সময়ের অপেক্ষা।
কৃষক শাহজান জানান, তিনি এবার ৩০শতাংশ জমিতে এর চাষাবাদ শুরু করেছেন। ব্যতিক্রমী ফসল হিসেবে খরিফ-২, বর্ষা মৌসুমে হচ্ছে এর চাষাবাদ। যা অন্য কোন ফসল এ মৌসুমে চাষাবাদযোগ্য নয়। এ তেল অন্য তেলের চেয়ে সু-সুগন্ধ অনেক বেশি, উচ্চমান এবং স্বাস্থ্যসম্মত, মধু আহরণে বিশেষ ভ’মিকা রাখা, এর কচি পাতা চায়ে মোহনীয় স্বাদ যে কাউকে মাতোয়ারা করে তোলে, সালাত কিংবা সবজি হিসেবেও রান্না করে খাওয়া যায়। নানা গুণে গুণান্বিত এ ফসল থেকে ৫/ ৬মন তেল বীজ উৎপাদন হবে বলে আশা করেন তিনি।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার তুষার কান্তি রায় জানান,এ অ লে পেরিলার চাষের নতুন স্বপ্ন- সম্ভাবনার দুয়ার খুলে দিতে ঢাকা শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে পেরিলার গবেষণায় পিএইচডিতে অংশগ্রহণকারী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা মোঃ আঃ কাইয়ুম মজুমদারের নিকট থেকে বীজ সংগ্রহ করে চারা উৎপাদনের মাধ্যমে ওই কৃষকের মাঝে সরবরাহ করেন। তিনি আরও জানান,পেরিলা তেল ৫০-৫৫ ভাগ ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড থাকে,যা মানবদেহে জন্য খুব উপকারী। এ তেলে ক্ষতিকর ইরুসিক এসিড নেই । এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করে। ওমেগা ৩ফ্যাটি এসিড সমৃদ্ধ তেলটি দেশের তেলের ঘাটতি কমিয়ে আনার পাশাপাশি এ অ লের অর্থনীতিতে যথেষ্ঠ অবদান রাখতে সক্ষম হবে।
উপজেলা কৃষি অফিসার হাবিবুর রহমান বলেন, পেরিলা চাষ সম্পর্কে চাষিদের বিভিন্নভাবে পরামর্শ দিচ্ছে কৃষি বিভাগ। এ এলাকার মাটি পেরিলা চাষে খুবেই উপযোগী। আশা করি পেরিলা চাষে কৃষক শাহজাহান আলীর দিন বদলের পাশাপাশি আগামিতে এ উপজেলার কৃষিকে সমৃদ্ধ করে তুলবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *