সুটিং এর নামে রুম ভাড়ার বাণিজ্যে মেতে উঠেছে মুক্তার মান্না

ক্রাইম রিপোর্ট
জিয়ারত হোসেন, কালিয়াকৈর গাজীপুর, প্রতিনিধিঃ
গাজীপুর জেলার কালিয়াকৈর উপজেলার ফুলবাড়িয়া ইউনিয়নের মোথাজুরী গ্রামের ৩ নং ওয়ার্ডের মৃত সামেজ উদ্দিনের ছেলে মুক্তার মান্না। তিনি দীর্ঘদিন যাবৎ সুটিং স্পটের নামে  নিজ বাড়িতে অনুমোদনহীন ইউটিউব চ্যানেলের শর্ট ফিল্ম,ভাদাইমা, টিক টক, ভিডিও তৈরি করার বাসস্থান বানিয়ে তুলেছে। গ্রাহক শ্রোতাদের আকর্ষিত করার জন্য এই ভিডিওতে কখনো কখনো বিভিন্ন ফিটনেসের  আপত্তিকর  পোশাক ব্যবহার করা হয়ে  থাকে। দিনভর সুটিং করার পর বহিরাগত এই অভিনেতাদের নিজের বাড়িতে রাত্রি যাপন ও খাওয়ার সুবিধা দেওয়া হয় টাকার বিনিময়। এই সমস্ত অভিনেতারা কোথা থেকে আসে তার কোন ঠিকানা রাখেনা বাড়ির মালিক মুক্তার মান্না। এই সকল অভিনেতা-অভিনেত্রীদের রাত্রিযাপনের জন্য রয়েছে তার বাড়িতে অভিনীত শিল্পীদের মিলেমিশে থাকার জন্য ১৩ টি রুম ও বিছানা রয়েছে। 
সামাজিক দৃষ্টিতে অবৈধ এই সমস্ত অসামাজিক কাজ কর্ম ও আপত্তিকর পোশাকের পরিবেশ যেকোনো সময় মিশে যেতে পারে এলাকার চারিপাশে ও এলাকায় এসকল বহিরাগত লোকের আগমনে যেকোনো সময় বিপদের সম্মুখীন হতে হবে বলে  নানাবিধ মন্তব্য স্থানীয় গ্রামবাসীর। 
রুম ব্যবসায় জড়িত মুক্তার মান্নার টাকার দাপট এবং  প্রভাবশালী লোকেদের সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক থাকায় মুখ খুলতে পারে না, এলাকার সাধারন জনগন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এলাকার একাধিক ব্যক্তি জানান যে খোলামেলা পরিবেশে এরকম ভিডিও তৈরি করাতে বাচ্চাদের লেখাপড়ার প্রতি মনোযোগ কমে যাচ্ছে ভিড় জমাচ্ছে  সুটিং ভিডিও অভিনয় দেখার জন্য, সেইসাথে  রাতের বেলায় অভিনয় শিল্পীরা তাহার বাড়িতে মাদক দ্রব্য সেবন করে বলেও জানাই। এ বিষয়ে মুক্তার মান্নার সাথে কথা বলে তিনি জানায় আমি কোন অপরাধ করি নাই আমার বাড়িতে সুটিং করতে অনেকে আসে   তারা আমাকে রুম ভাড়া ও তাদের খাবারের জন্য  টাকা দেয়। তাদের থাকার জন্য ১৩ টি রুম করে দেওয়া হয়েছে প্রতি রুমে দুইটি করে বিছানা দেওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে উক্ত ওয়ার্ডের জনপ্রতিনিধি মেম্বার জয়নুল আবেদিন জানায় এলাকার অনেকেই এ বিষয়ে আমার কাছে বলেছে তাকে একাধিকবার নিষেধ করা হলেও সে কোন গুরুত্বারোপ করে না, সামাজিক দৃষ্টিতে খোলা পরিবেশে ভিডিও ও প্রতিনিয়ত পরিচয়বিহীন ব্যক্তিদের রাত্রি যাপন অবৈধ বলে জানায়।
 এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাজাওয়ার আকরাম সাকাপি ইবনে সাজ্জাদ   বলেন এরকম কোনো অনুমোদন উপজেলা থেকে দেওয়া হয়নি, তবে লিখিত অভিযোগ পাইলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *