রাণীনগরে কোরআন অবমাননা ও রাসুল (সাঃ) কে নিয়ে কটুক্তি করায় সহকারী অধ্যাপক রউফকে শোকজ

ধর্ম

মো: আব্দুল মালেক রাণীনগর (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর রাণীনগর উপজেলায় ফেসবুকে (সোশ্যাল মিডিয়ায়) কবিতা লেখার মাধ্যামে কোরআন অবমাননা ও রাসুল (সাঃ) কে নিয়ে কটুক্তি করায় মহিলা কলেজের সহকারী অধ্যাপক (বাংলা) আব্দুর রউফ মিঞাকে শোকজ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) দুপুরে কলেজের অধ্যক্ষ মিরাজুল ইসলাম তাকে শোকজ করেন।

এদিন জোহরের নামাজের পর থেকে রাণীনগর মহিলা কলেজের সহকারী অধ্যাপক (বাংলা) আব্দুর রউফ মিঞার বিরুদ্ধে কোরআন অবমাননা ও রাসুল (সাঃ) কে নিয়ে কটুক্তি করার অভিযোগ এনে বিচারের দাবিতে কলেজে অবস্থান নেয় আলেম-ওলামা সহ তৌহিদী জনতা। এ সময় কলেজে উত্তেজনা ছড়িয়ে পরে। এরপর দ্রæত পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।

বিচারের দাবিতে কলেজে অবস্থান নেওয়ার সময় মতিউর রহমান উজ্জল, মাহমুদুল হাসান মধু, রবিউল ইসলাম টিক্কাসহ অনেক আলেম-ওলামা ও তৌহিদী জনতা জানান, গত তিনদিন আগে রাণীনগর মহিলা কলেজের সহকারী অধ্যাপক (বাংলা) আব্দুর রউফ মিঞা তার নিজের ফেসবুক আইডিতে কবিতা লেখার মাধ্যামে কোরআন অবমাননা ও রাসুল (সাঃ) কে নিয়ে কটুক্তি করে পোস্ট করেন। এরপর বিষয়টি জানাজানি হয়। বিষয়টি নিয়ে কলেজ কর্তৃপক্ষকে ওই সহকারী অধ্যাপকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বার বার বলা হয়। তারপরে কলেজ কর্তৃপক্ষ কোন ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় বৃহস্পতিবার জোহরের নামাজের পর থেকে স্থানীয় আলেম-ওলামা সহ তৌহিদী জনতা বিচারের দাবিতে কলেজে অবস্থান নেয়। এরপর বিকেল ৩ টার দিকে কলেজের ওই সহকারী অধ্যাপকে শোকজ করার কথা আমাদের বলা হয় এবং পুলিশ তাকে আইনের আওয়তায় আনার আশ^াস দিলে সেখান থেকে আমারা চলে আসি।

তারা আরও জানান, ওই সহকারী অধ্যাপকে দ্রæত আইনের আওতায় আনা না হলে তারা কঠোর কর্মসূচিতে যাবেন বলেও জানিয়েছেন আলেম-ওলামা সহ তৌহিদী জনতা।

শোকজের বিষয়টি নিশ্চিত করে রাণীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও মহিলা কলেজের সভাপতি শাহাদাত হুসেইন বলেন, ঘটনাটি জানাজানি হলে অধ্যক্ষ তাকে শোকজ করেছে। তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে।

রাণীনগর মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ মিরাজুল ইসলাম বলেন, কোরআন অবমাননা ও রাসুল (সাঃ) কে নিয়ে কটুক্তি করায় কলেজের সহকারী অধ্যাপক (বাংলা) আব্দুর রউফ মিঞাকে বৃহস্পতিবার শোকজ করা হয়। শোকজের কপি পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। আর তিন কার্যদিবসের মধ্যে তাকে শোকজের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রাণীনগর মহিলা কলেজের সহকারী অধ্যাপক (বাংলা) আব্দুর রউফ মিঞা বলেন, আমি কবিতা লেখেছি। কাউকে নিয়ে কটুক্তি করিনি। আর শোকজের কোন কপি আমি পাইনি এবং জানি না বলেও জানান তিনি।

এ ব্যাপারে রাণীনগর থানার ওসি (তদন্ত) সেলিম রেজা বলেন, ঘটনাটি জানার পর কলেজে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনা হয়েছে। ওই সহকারী অধ্যাপকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.