হেফাজত ইসলাম বাংলাদেশের আমীর ও সিনিয়র নায়েবে আমীরের সাথে ‘এবি পার্টি’ নেতৃবৃন্দের সৌজন্য সাক্ষাৎ ও মতবিনিময়

বিনোদন

রাজনৈতিক দল ও দেশের শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দের  সাথে ধারাবাহিক মতবিনিময় কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ ৩১’জুলাই রবিবার বিকেলে ৪ টায় এবি পার্টির কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের একটি প্রতিনিধিদল চট্টগ্রাম আসেন। তাঁরা দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী ও আল জামিয়াতুল ইসলামিয়া বাবুনগর মাদরাসায় হেফাজতের আমীর আল্লামা মুহিবুল্লাহ বাবুনগরী ও সিনিয়র নায়েবে আমীর আল্লামা মুহাম্মদ ইয়াহিয়ার সাথে সাক্ষাৎ করেন।

এবি পার্টির কেন্দ্রীয় যুগ্ম আহবায়ক ও চট্টগ্রাম মহানগর আহবায়ক অ্যাডভোকেট গোলাম ফারুক এবং সদস্য সচিব মজিবুর রহমান মন্জুর নেতৃত্বে এবি পার্টির একটি প্রতিনিধি দল বিকেল ৪ টায় হাটহাজারী মাদরাসায় পৌঁছান। সে সময়ে মাদ্রাসার শিক্ষক ও কর্মকর্তাগণ তাদের স্বাগত জানান। সেখানে পৌঁছেই প্রতিনিধি দল হেফাজতে ইসলামের সাবেক আমীর মরহুম আল্লামা আহমদ শফি ও মরহুম আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরীর মাকবারা জিয়ারত করেন। এরপর নেতৃবৃন্দ দারুল উলুম হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক ও হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের সিনিয়র নায়েবে আমীর আল্লামা মুহাম্মদ ইয়াহিয়ার সাথে সৌজন্য বৈঠকে মিলিত হন। মাওলানা ইয়াহিয়া এবি পার্টি নেতৃবৃন্দকে ধন্যবাদ জানান এবং মুসলিম উম্মাহর ঐক্য ও দেশের কল্যাণের জন্য সকলকে যার যার অবস্থান থেকে কাজ করার অনুরোধ জানান।

এর পর এবি পার্টির প্রতিনিধি দলটি ফটিকছড়ির আল জামেয়াতুল ইসলামিয়া বাবুনগর গিয়ে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমীর হজরতুল আল্লামা মুহিবুল্লাহ বাবুনগরীর সাথে সাক্ষাত ও মতবিনিময় করেন।

হেফাজতের আমীর এবি পার্টির নেতৃবৃন্দকে স্বাগত জানান। ৫ ই মে শাপলা চত্বরের সংগ্রামী শহীদদের আত্মত্যাগের কথা স্মরণ করে তিনি বলেন, সেদিন আলেম ওলামারা তাদের দাবী জানানোর জন্য রাজপথে দাড়িয়েছিল অথচ তথাকথিত গণতন্ত্রের ধ্বজাধারীরা অস্ত্রের মুখে আমাদের অধিকারের দাবীকে ধুলিস্মাৎ করতে চেয়েছিল। তিনি বলেন দেশে মূলতঃ গণতন্ত্রের নামে অস্ত্রতন্ত্র চলছে। এবি পার্টির নেতৃবৃন্দের জন্য দোয়া ও মুনাজাত করে তিনি বলেন, তত্বাবধায়ক সরকারের অধীন ছাড়া নির্বাচন সুষ্ঠু হবেনা সেজন্য আপনারা সহ সবাই একজোট হয়ে কাজ করুন। আল্লাহ তায়ালা অবশ্যই এই জুলুম থেকে আমাদের মুক্তি দেবেন।

এবি পার্টির সদস্য সচিব মজিবুর রহমান মন্জু মরহুম আল্লামা আহমদ শফী ও আল্লামা হাফেজ জুনায়েদ বাবুনগরীর স্মৃতিচারণ করেন এবং কারানির্যাতিত আলেম ওলামাদের মুক্তি দাবি করেন। তিনি সাম্য মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক সুবিচারের ভিত্তিতে একটি কল্যাণরাষ্ট্র গঠনের লক্ষ্যে এবি পার্টির কার্যক্রম এগিয়ে নেয়ার জন্য হেফাজত আমীরের দোয়া কামনা করেন।

এবি পার্টির প্রতিনিধিদলে অন্যান্য নেতৃবৃন্দের মধ্যে ছিলেন কেন্দ্রীয় সহকারী সদস্য সচিব ইন্জিনিয়ার মোহাম্মদ লোকমান, কেন্দ্রীয় সহকারী সদস্য সচিব ছিদ্দিকুর রহমান, কেন্দ্রীয় সহকারী সদস্য সচিব সাংবাদিক শামসুল হক শারেক, চট্টগ্রাম মহানগর সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ আবুল কাসেম, এবি পার্টির কেন্দ্রীয় স্টুডেন্ট উইং এর সমন্বক মুহাম্মদ প্রিন্স ও এবি যুব পার্টির চট্টগ্রাম মহানগরের সমন্বয়ক আব্দুর রহমান মনির।

Leave a Reply

Your email address will not be published.