সিরাজগঞ্জে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের আয়োজনে পবিত্র আশুরার গুরুত্ব ও তাৎপর্য শীর্ষক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত। 

সারাদেশ
আজিজুর রহমান মুন্না সিরাজগঞ্জ ঃ  ইসলামিক ফাউন্ডেশন সিরাজগঞ্জের আয়োজনে, পবিত্র আশুরা ১৪৪৪ হিজরি উদযাপন উপলক্ষে- আশুরার গুরুত্ব ও তাৎপর্য শীর্ষক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। 
মঙ্গলবার (৯ আগষ্ট)  বেলা সাড়ে১১ টার দিকে জেলা পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে –  পবিত্র আশুরা  গুরুত্ব ও তাৎপর্য পূর্ণ শীর্ষক আলোচনা সভার  প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্যে রাখেন,  পুলিশ সুপার ও অতিরিক্ত ডিআইজি পদে পদোন্নতি প্রাপ্ত  হাসিবুল আলম বিপিএম। 
তিনি তার বক্তব্যে বলেন, আশুরা হলো মুসলমানদের জন্য শোকাবহ দিন। এ দিনে  মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সঃ) দৌহিত্র ইমাম হোসেন ইরাকের কারবালা মরু প্রান্তরে ইয়াজিদ বাহিনীর হাতে নিমর্মভাবে শহীদ হন। কারবালার প্রান্তরের কাহিনী আমাদের শিক্ষা দেয়, অন্যায় কতটা নিমর্ম হতে পারে। অন্যায়ের কষ্টতা কতটা অন্তবিদ্ধ করতে পারে। কারবালার শিক্ষা টা হচ্ছে অন্যায় থেকে মুক্ত থাকি। সকল নবী-রাসুলেরা এবং আলোর দিশারীরা সত্যের পথে থেকেছেন। তাই আমাদরকে  সৎ ও ন্যায় পথে থাকতে হবে। পাপকে ঘৃণা করা, লোভ-লালসা ও মিথ্যা কথা বলা থেকে বিরত থাকতে হবে। কারো হক মেরে খাওয়া যাবেনা, ঠকানো যাবেনা, সুশিক্ষা অর্জন করার পাশাপাশি  সচেতন হতে হবে। সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ কর্মকাণ্ড কেউ যেন জরিয়ে না পড়ে  সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। ইসলাম হলো শান্তির ধর্ম। 
বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্যে রাখেন, সিরাজগঞ্জ প্রেসক্লাবে সভাপতি হেলাল আহমেদ। অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন, ইসলামিক ফাউন্ডেশন সিরাজগঞ্জের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ ফারুক আহমেদ। 
অনুষ্ঠানে দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন, সিরাজগঞ্জ  জেলা মডেল মসজিদ ও ইসলামি  সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের পেশ ইমাম   হযরত মাওলানা মোঃ তরিকুল ইসলাম। 
পবিত্র আশুরা’র গুরুত্ব ও তাৎপর্য দিন  এ বিষয়ে ব্যাপক আলোচনা করেন, হাজী আহমেদ আলীয়া মাদ্রাসার প্রভাষক ও সিরাজগঞ্জ কুবা জামে মসজিদের পেশ ইমাম হযরত মওলানা মোঃ রুহুল আমীন, ইসলামিক ফাউন্ডেশন সিরাজগঞ্জের ফিল্ড অফিসার হযরত মওলানা মোঃ মহিউদ্দিন আহমেদ। 
অনুষ্ঠানে জেলার ৯ উপজেলার শতাধিক মসজিদ – মাদ্রাসার খতিব, ইমাম, শিক্ষকেরা উপস্থিত ছিলেন। 
 বক্তারা বলেন, আজ পবিত্র আশুরা। মহান আল্লাহর প্রেরিত নবী- রাসুলদের গুরুত্ব ঘটনার সংগঠিত হয়েছে এ দিনে। মুসলিম উম্মার জন্য বেদনাদায়ক ও শোকাবহ দিন। ৬২ হিজরীর মহরম মাসের ১০ তারিখে মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সঃ) এর নাতী হযরত ইমাম হোসেন ইরাকের কারবালা মরু প্রান্তরে ইয়াজিদ বাহিনীর হাতে নিমর্মভাবে, নিষ্ঠুরভাবে শহীদ হন। শোকের প্রতিক হিসেবে এ দিনটি পালন করা হয়। অনেক তাৎপর্যপূর্ণ  দিনটিতে রোযা পালন ও পুরো মহরম মাসে দান, নফল ইবাদতের উপর গুরুত্ব দেওয়ার আহবান জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published.